বাংলা সাল

স্বাগতম

এই ব্লগ পেইজটি ভিজিট করার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ। ভালো লাগলে আবার আসবেন। *** শিক্ষার কোন বয়স নাই, জানার কোন শেষ নাই। বিভিন্ন বাংলা সাইট পরিদর্শন করা নিত্য দিনের অভ্যাস হয়ে গেছে। আর যে সব পোষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ও দেখতে ভালো লাগে তাহার কপি সংগ্রহ করে এইখানে প্রকাশ করি মাত্র। *** বিঃদ্র ( যে সকল ব্লগ বা ওয়েব সাইট থেকে কোন অনুমতি ছাড়া কপি করে এইখানে পোষ্ট করি, কারো যদি কোনো অভিযোগ থাকে দয়া করে জানাবেন। সেটিকে মুছে দেব। ধন্যবাদ।। )

দুই বন্ধু- গল্প

একবার দুই বন্ধু জঙ্গলে বেড়াচ্ছিল। এমন সময় এক ভাল্লুক এসে তাদের আক্রমণ করল। একজন দৌড়ে পালিয়ে এক গাছে চড়ে লুকিয়ে পড়ল। কিন্তু অন্যজন কিছু করতে না পেরে মাটিতে মরার ভান করে পড়ে রইল।

ভাল্লুক তার কাছে এসে তাকে শুঁকতে লাগল। সে তার নিশ্বাসও বন্ধ করে রইল। ভাল্লুক তার মুখ শুঁকে তাকে মরা মনে করে চলে গেল। ভাল্লুক চলে গেলে অন্য বন্ধু গাছ থেকে নেমে হেসে জিজ্ঞাসা করল, ‘ভাল্লুক তোমার কানে কানে কি বলল?’

‘ভাল্লুক বলল বিপদের সময় যারা বন্ধুকে ফেলে পালায় তারা মোটেও ভালো লোক নয়।’

একটি শিক্ষানীয় গল্প- কানে হেডফোন দিয়ে জানাযার নামাজ পড়তে গেল

পড়ার অনুরোধ রইলোঃ- ১টা ছেলে কানে হেডফোন দিয়ে জানাযার নামাজ পড়তে গেল। সেখানকার হুজুর তাকে বললোঃ- 
হুজুর: এটা খুলে ফেল। তারপর জানাযার নামাজ আদায় করো। 
ছেলেটা বললোঃ- 
ছেলে: আমার এখনো অনেক সময় আছে। আর এখন আমি যুবক এখন যদি ইনজয় না করি তাহলে কখন করবো?

হুজুর আর কিছু বললো না। সেই জানাযা পড়ানোর ১মাস পর আবার ১টা
জানাযা পড়াতে গেল হুজুর। যার জানাযা পড়াতে এসেছে তার মুখ দেখে
হুজুর আর নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে পারছেন না। এ তো সেই ছেলে যেই ছেলে ১মাস আগে কানে হেডফোন দিয়ে জানাযার নামাজ আদায় করেছিলো| আর আজ তারই জানাযা। 

সব মেয়েরা আমাকে দেখে মুচকি মুকচি হাঁসে কেন----

আজব কাহিনী আমার মত এত চিকন আলী সিংঙ্গিসকে দেখে আজকে ক্লাসে সব মেয়েরা মুচকি মুকচি হাঁসে। তাদের কাণ্ড দেখে আমিও হাঁসি আর হাঁসি , ধরে রাখতে পারেনি হাঁসি । কি যে হলো বুঝতে পারিনি শুধু হাঁসি। খুব আনন্দে হাঁসি  আর হাঁসি । ক্লাস শেষে রাস্তা দিয়ে একলা হাঁটি আর হাঁসি । হাঁসতে হাঁসতে হাঁটি। অবশেষে বাড়ি  এসে হেঁসে হেঁসে বই টেবিলে রাখি তারপর শাটের বোতাম উপর থেকে  একটি একটি করে খুলি আর হাঁসি, খুলতে খুলতে নিচের দিকে নজর পড়ল সাথে সাথে আবিষ্কার হল  হাঁসি।

মামা ভাগিনাকে শখ করে কবিতা শুনাল তার বিনিময়ে মামা ভাগিনাকে কি উপাধি দিল দেখুন---

হাসলে আয়ু বাড়ে, হাসলে নাকি মন ভালো থাকে তাই বলে কি নিজের বুগলে নিজে কাতুকুতু দেব নাকি হাহাহা। এই ভাবে কি আর হাসা যায়। তাই বলে কি হাসব না। নিচের গল্পটি পড়ুন, দেখবেন হাসি এমনিতে আসবে। হাসুন আর পড়ুন, মনকে ভালো রাখুন। 

বল্টুর মামা ওয়াশ রুমে গেলো, কিছুক্ষণ পর মামা ওয়াশ রুম থেকে ফিরে এসে দেখে বল্টু ওয়াশ রুমের দরজার সামনে দাড়ানো !!! 

মামাঃ কিরে বল্টু!!! এখানে কি করসিছ...???।

বল্টুঃ মামা একটা কবিতা শুনাতে ইচ্ছা করছে ...???।

মামাঃ সবাই বলে গান শুনানোর কথা, আর তুই কবিতা.... হা.!হা.!হা.!
বল্টুঃ আরে মামা বুঝো না কেন, আমি তো আর সবার মতো না ! এখন কবিতা শুনবে কি না তা বলো ??? 
মামাঃ হু, শুরু কর তাহলে তোর কবিতা!!!
বল্টুঃ

গাছের মাপ বা ফুট হিসাব

গাছের মাপের হিসাব, গাছের ফুট হিসাব, সাইজ কাঠের হিসাব, কাঠ পরিমাপের সূত্র ইত্যাদি সবাই জানে না। বর্তমান প্রযুক্তির যুগে অনলাইন থেকে google মামার সাহায্য নিয়ে যে কোন বিষয়ে অনেক কিছু জানা যায়। আমি নিজ প্রয়োজনে গুগোল থেকে Search দিয়ে গাছের হিসাব সংগ্রহ করি এবং আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম। আশা করি আপনাদের ভালোলাগবে।


জেনে রাখা ভালোঃ 
১ সিএফটি = ১ ফুট (এক কথা) ,
১৪৪ পাঠ = ১ সিএফটি বা ফুট,
১২ পাঠ = ১ ইঞ্চি, 
১২ ইঞ্চি = ১ ফুট , 

এখন আপনি ১ সিএফটি কাঠ কি ভাবে বাহির করবেন , সুত্রঃ ১। দৈঘ্য (ফুট)*প্রস্থ(ইঞ্চি)*থিকনেস্থ(ইঞ্চি)*সংখ্যা/১৪৪ = সিএফটি। ব্যাখ্যাঃ পাশ (১২ ইঞ্চি) * পুরুত্ব (২ ইঞ্চি) * উচ্চতা (৬ফুট বা ৭২ ইঞ্চি ) ( উচ্চতার ক্ষেএে এখানে হিসাবে ফুট আসবে মনে রাখবেন) = ১৪৪ পাঠ বা ১ ফুট বা ১ সিএফটি । অথবা, ১৪৪পাঠ * ১২ইঞ্চি = ১৭২৮ ইঞ্চি= ১ ফুট বা ১ সিএফটি 

উদাহারনঃ 
যেমন একটি দরজার মাপ হলো পাশে ৩৭ ইঞ্চি, উচ্চতা ৮১.৫ ইঞ্চি আর পুরুত্ব হলো ১.৭৫ ইঞ্চি। এখন এটার সিএফটি হিসেবে কতটুকু হবে?? 

সমাধানঃ 
প্রশ্ন মতে, পাশে ৩৭ ইঞ্চি, উচ্চতা ৮১.৫ ইঞ্চি আর পুরুত্ব হলো ১.৭৫ ইঞ্চি
এখন, সুত্র মতে দৈঘ্য (ফুট) x প্রস্থ(ইঞ্চি) x থিকনেস্থ(ইঞ্চি) x সংখ্যা/১৪৪ = সিএফটি

=>পাশে ৩৭ (ইঞ্চি) x পুরুত্ব ১.৫ (ইঞ্চি) x উচ্চতা ৬.৮০ (ফুট বা ৮১.৫ ইঞ্চি ) 
=> ৩৭৭.৪ পাঠ ( আমরা জানি, ১৪৪ পাঠ = ১ সিএফটি বা ফুট,) 

সুতারাং ৩৭৭.৪ ÷ ১৪৪ 
=> ২.৬৩ (প্রায়) ফুট বা সিএফটি ।

গোল কাঠের হিসাব:
গোল কাঠের হিসাবের সুত্রঃ {(বেড়xবেড়)ফুট xলম্বা ফুট }÷১৬=CFT

উদাহারনঃ মনে করি, একটি গোল কাঠের বেড় (মাঝের মাপ) ৫ ফুট ও লম্বা ৬ ফুট হলে কাঠটি কত CFT?

সমাধানঃ 

সুত্র মতে- {(বেড়xবেড়)ফুট xলম্বা ফুট }÷১৬= CFT

=> {(৫x৫)x ৬}÷১৬ 

=> {২৫x৬}÷১৬

=> ১৫০÷১৬

=> ৯.৩৮ প্রায় CFT 

লিঙ্ক সুত্রঃ এইখানে 

আপডেট চলতেছে----- হিসাবে কোন ভুল ধরা পরলে কমেন্ট করে জানাবেন, সবার উপকারে আসবে আশা করি 

২০১৮ ইংরেজি সালকে স্বাগতম

সুখ দুঃখ, হাঁসি কান্না, প্রেম বিরহ নানা রঙ্গের রঙ তামশার মধ্যে আজ রাত ১২টায় জন্ম নিবে নতুন আরেকটি বছর, পঞ্চিকার নিয়মে ২০১৭ কে বিদায় জানিয়ে নতুন করে ২০১৮ ইংরেজি সালকে স্বাগত। সাথে সাথে জানাই এই পেইজের আগত প্রিয় পাঠক বন্ধুদের নতুন বছরে শুভেচ্ছা ও অবিনন্দন। আজকের রাতে কত রকম আয়োজন করে রঙ্গ তামশ করবে তাহার কোন হিসাব নেই। এই বেহিসাবের মাঝে আমাদের জীবনের হায়াত থেকে একটি বছর পার করলাম তাহার শুক্রিয়া আল্লাহ্‌র দরবারে পেশকরে বলি, ''আলহামদুলিল্লাহ্‌'' আল্লাহ্‌ আমাদের দুনিয়াতে সৃষ্টি করেছে একমাত্র তাহার ইবাদাত করার জন্য। আজ আমরা তাহার কথা ভুলে গিয়ে রঙ তামশা করে জীবনের হায়াত শেষ করে দিতেছি। রঙ্গ তামশার পথ ছেড়ে দিয়ে নতুন বছরে অঙ্গিকার করি আল্লাহ্‌র দরবারে,---- 

হে আল্লাহ, তুমি আমার প্রভু তুমি ছাড়া কোন ইলাহ নেই। তুমি আমাকে সৃষ্টি করেছ আর আমি হচ্ছি তোমার বান্দা এবং আমি আমার সাধ্য-মত তোমার প্রতিশ্রুতিতে অঙ্গীকারাবদ্ধ রয়েছি। আমি আমার কৃতকর্মের অনিষ্ট হতে তোমার আশ্রয় ভিক্ষা করি। আমার প্রতি তোমার নিয়ামতের স্বীকৃতি প্রদান করছি, আর আমি আমার গুনাহ-খাতা স্বীকৃতি করছি। অতএব তুমি আমাকে মাফ করে দাও নিশ্চয়ই তুমি ভিন্ন আর কেউ গুনাহ মার্জনাকারী নেই। [বোখারি : ৫৮৩১]

আল্লাহ ছাড়া ইবাদতের যোগ্য কোন মা‘বুদ নেই। তিনি এক তাঁর কোন শরিক নেই। রাজত্ব তাঁরই এবং প্রশংসা মাত্রই তাঁর। তিনি সকল কিছুর উপর ক্ষমতাবান। হে আল্লাহ! তুমি যা প্রদান কর তা বাধা দেয়ার কেহই নেই, আর তুমি যা দেবে না তা দেয়ার মত কেহ নেই। তোমার গজব হতে কোন বিত্তশালী বা পদমর্যাদার অধিকারীকে তার ধন-সম্পদ বা পদমর্যাদা রক্ষা করতে পারে না।[বোখারি : ৭৯৯]

ধাঁধা - নিজের বুদ্ধিকে পরীক্ষা কর- পারলে তুমি বুদ্ধিমান

মাঝে মাঝে নিজের অলস সময়কে পরীক্ষা করে নেওয়া ভালো। তাই পরীক্ষা করে নেওয়ার জন্য এইখনে একটি ধাঁধার খেলা খেলে নিজেকে বুদ্ধিমান প্রমান কর -- ধাঁধা 


১০০ টাকার ১ টি নোটকে ৫০ টি নোট করতে হবে এবং ২ টাকার কোন নোট বা পয়সা ছাড়া !


উত্তরঃ কি ভাবে হবে????  

মানুষের চাওয়ার শেষ নেই

মানুষের চাওয়ার কোন শেষ নাই, চলেবলে কলে যে ভাবে হোক মানুষের চাওয়া পাওয়ার কলাকোশল একেক জনের একেক রকম। চাওয়া পাওয়ার হিসাব  করতে করতে স্বপ্নের বাসর গড়ে ওঠে। কে কি ভাবে চায় নিজের মনের সাথে একটু মিলিয়ে দেখুন। 

❐ উকিল চায় আপনি ঝামেলায় পড়ুন।
❐ ডাক্তার চায় আপনি অসুখে পড়ুন।
❐ পুলিশ চায় আপনি বেআইনী কাজ করুন।
❐ ইলেকট্রিশিয়ান চায় আপনার বাড়ির ওয়্যারিং জ্বলে যাক।
❐ বাড়িওয়ালা চায় আপনি যেন জীবনে বাড়ি করতে না পারেন।
❐ মুচি চায় আপনার নতুন জুতো ছিঁড়ে যাক।
❐ ব্যাংকার চায় আপনি টাকা লোন নিয়ে ঋনগ্রস্থ হোন।
❐ প্রাইভেট টিউটর চায় আপনার সন্তান পাঠ্যপুস্তকের পড়া কম বুঝুক।
❐ আমি চায় সবাই আমার অধীনে থাক--- হেহেহে 


এই ভাবে চাওয়ার কোন শেষ নাই------ 



**শুধুমাত্র চোর চায় আপনি ধনী হোন আর মহাসুখে নাক ডেকে ঘুমান।
অতএব, চোরই আপনার প্রকৃত বন্ধু। --------------প্রমানিত

জেনে নিন- কি করে তারকা হল

রজনীকান্ত - "২৫ বছর বয়স পর্যন্ত বাস কন্ডাক্টর ছিল" 
লিউনেল মেসি - "টাকার অভাবে ফুটবল ট্রেনিং চালানোর জন্য ছোটবেলা চায়ের দোকানে কাজ করত" 
আব্রাহাম লিংকন - "ছেলেবেলায় টাকা উপার্জনের জন্য জুতা সেলাই করত"

বিল গেটস - " তার পড়াশোনা ঠিকমত শেষ করতে পারে নাই"

স্টিভ জবস -"ছাত্র থাকাকালে প্রতি রবিবার ৭ মাইল পথ পায়ে হেঁটে মন্দিরে যেত একবেলা ভালো খাবারের জন্য"

আপনি যেহেতু এই স্ট্যাটাসটা পড়তে পারছেন তারমানে আপনার অবস্থা এদের থেকে ভালো। আপনি হয়তো চাইলেই বিল গেটস , স্টিভ জবস হতে পারবেন না কিন্তু আপনি হতে পারবেন অন্য আরেকজনের উদাহরন।

আশা- ছোট গল্প

আমি কোন গল্প লেখক নয়, গল্প পড়তে ভালোবাসি। পড়তে পড়তে ভালো লাগলে তাহা সংগ্রহ করে এই খানে শেয়ার করি। আশা করি আমার ভালো লাগা আপনাদের ও ভালো লাগবে। পড়ে দেখুন সুন্দর  গল্পটি রূপক কিন্তু হাজারো হতাশা,দুঃখ আর সমস্যার অন্ধকারে ডুবে গিয়ে আশা নামের আলোটি কে কখনোই নিভতে দেওয়া উচিৎ নয়


কারন আশা না থাকলে আমাদের জীবন থেকে শান্তি,বিশ্বাস ও ভালবাসা অন্ধকারে হারিয়ে যাবে।

একটি রুমের ভেতরে ৪টি মোমবাতি জ্বলছিলো।মোমবাতিগুলো একে অপরের সাথে তাদের নিজস্ব ভাষায় কথা বলা শুরু করলো।প্রথম মোমবাতি টি বললো,‘আমি বিশ্বাস।কেউ আমাকে জ্বালিয়ে রাখতে পারছেনা।আমি এখন নিভে যাবো।’তারপর সেটি নিভে গেলো

২য় মোমবাতি টি বললো,‘আমি শান্তি।বিশ্বাস যেহেতু নেই,তাই আমার আর জ্বলতে থাকার কোনো প্রয়োজন দেখছিনা।আমি এখন এখন নিভে যাবো’।কথা শেষ করার পর ২য় মোমবাতিও নিভে গেলো

গলা জলার কারণ কি?

গলা জ্বালা বা বুক জ্বালার কথা অনেককে বলতে শোনা যায়। এই রোগের মূল কারণ হিসেবে গ্যাস্ট্রো ইজোফ্যাকাল রিফ্লেক্স ডিজিজ (Gastroesophageal Reflux Disease ) বা সংক্ষেপে গার্ড (GERD) কে দায়ী করা হয়। বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার অন্যতম খ্যাতনামা চিকিৎসা কেন্দ্র ইউনাইটেড হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডা.মাহবুব আলমের সাথে আমাদের আলাপ হয়েছে । সাধারণ ভাবে বুক বা গলা জ্বালা পোড়া করলে অনেকেই ধরে নেন যে তার 'গ্যাসট্রিক' বা এসিডিটি হয়েছে । তবে বুক বা গলা জ্বালা পোড়া করলেই এসিডিটি হয়েছে নিশ্চিত ভাবে এমনটা মনে করার কারণ নেই । বুক জ্বালা পোড়ার সাথে সাথে অনেকরই বুকে প্রচন্ড ব্যথা হতে পারে । ব্যাথার প্রচন্ডতা এতোটাই হতে পারে যে হার্ট এটাক বা হৃদরোগ হয়েছে বলে মনে হতে পারে। আমাদের খাদ্যদ্রব্য হজম করার জন্য পাকস্থলীতে এসিড, পিত্তরস এবং পেপসিন সহ বেশ কিছু উপাদান থাকে। 

এ সব উপাদান নানা কারণে খাদ্য নালীতে ঢুকে পড়লে এবং সেখানে দীর্ঘ সময় অবস্থান করলে পরিণামে খাদ্যনালীর যে আবরণ আছে তার ক্ষতি হয়। আর এ কারণেই গলা জ্বালা বা বুক জ্বালার মত উপসর্গ দেখা দেয়।

হ জ ব র ল

হ জ ব র ল এইটা কি? ভাবতেছেন! বুঝতেছেনা? কেমনে বুঝবেন? রাগ হচ্ছে? রাগ হওয়ার কথা হেহেহে।হেঁসে নিলাম, মাথা নষ্ট। অযতা সময় নষ্ট! কি করবেন? পাগলের পাল্লায় পরেছেন কখনো? পড়েন নাই? না পড়লে পড়ার ধরকার নাই। পড়লে পড়তে থাকেন? কি পড়বেন, ভাবতেছেন? এইটা আবার কি কথা? কথার কথা, বাজে কথা। লেখতে বসলাম মনের কথা। কি লেখব! ভাবতেছি, কি দিয়ে শুরু করি। চিন্তা ভাবনার দিন শেষ, শুরু করলাম শেষমেশ।  সুখ দুঃখ হাঁসি কান্না প্রেম বিরহ ভালোবাসার চন্দ কথা ইত্যাদি। এই হল মূল কথা।গল্প গদ্য উপন্যাস, জীবনটার সর্বনাশ।ভুলে ভরা গল্প লেখি, পড়বে কেউ এই সব দেখি। ভাবতেছি আর কি লেখি। গালে হাত দিয়ে বসে আছি।হেহেহে- তা হলে কেম্নে লেখি!!! পাগল মনে হয়, হয়ে গেছি। পণ্ডিত মশাই এর কথা বলতেছি। নিজের নামে সুনাম করি।ভাবতে আমার অবাক লাগে, ভাবতে ভাবতে, ভাবতে লাগছে বেশ তোমায়। ভাবছি লাইক দেবো নাকি। ভালোবাসি তোমায় ভালোবেসে যাব। মনের মাঝে তুমি, অন্তর দিলাম দলিল করে। বিশ্বাসঘাতক নই আমি ভালোবাসি তোমায়। এই ঘর এই সংসার গড়ব বাংলাদেশ। পাগল তোর জন্য রে কি যাদু করেছ বলনা, কি করে তোকে বোঝাই। থাকতে পারিনা কথা না বলে। টাকা নাই কি করব। ধার ধারি না, কথা দাও আবার আসবে।   

শিক্ষনিয় পোষ্ট- আমাদের প্রিয় নবীজী হযরত মোহাম্মদ (সাঃ) এর একজন কালো সাহাবি

রাসুলুল্লাহ (সাঃ)এর গুরুত্বপুর্ণ একটা ঘটনা ,,, ২ মিনিট সময় নষ্ট করে একটু পড়ি, আশা করি কেউ মিস করবেন না. 


আমাদের প্রিয় নবীজী হযরত মোহাম্মদ (সাঃ) এর একজন কালো সাহাবি ছিলো ,সকল সাহাবির মধ্যে সেই বেশি কালো , কিন্তু নবীজী(সাঃ)এর ভালোবাসায় সর্বদা জীবন দিতে প্রস্তুত , সেও সাহসি সাহাবির মধ্যে একজন , প্রিয় নবীজি(সাঃ) তাকে অনেক ভালো বাসতেন তাকে । ।

_____ একদিন নবীজী(সাঃ) বললো , কালো সাহাবিকে তুমি সারাক্ষণ আমার সাথেই থাক, তাই তোমার কাছে আমি কিছু জানতে চাই, নবীজী(সাঃ)এর কাছে মাথা নিছু করে কালো সাহাবি বলল , হুজুর আমার জান হাজির আপনি শুধু বলুন কি জানতে চান , নবীজী বলল তোমার বিয়ের সময় হয়েছে , তুমি কি তার জন্য প্রস্তুত ।

কালো সাহাবি মাথা নেরে বলল , হুজুর আমি যে এত কালো আমার কাছে কে মেয়ে বিয়ে দেবে , নবীজী(সাঃ) বলল তুমি বিয়ে করবে কিনা বল তোমার জন্য আমি মেয়ে দেখবো , কথাটি শুনে কালো সাহাবি খুশিতে কেঁদে ফেললো , হুজুর আপনি আমার জন্য মেয়ে দেখবেন , এর চেয়ে আমার কাছে বড় আর কি হতে পারে,আমি রাজি। ।

নবীজী(সাঃ) একটি পত্র লিখে কালো সাহাবির হাতে দিয়ে বললেন এই পত্রটি মদিনার বড় বাড়িতে গিয়ে , মালিকের হাতে দিয়ে উত্তর জেনে তার পরে আসবে , কালো সাহাবি জানে না এর ভিতরে কি লেখা আছে , নবীজী(সাঃ)এর কথা অনুযায়ী পত্র খানি নিয়ে মদিনার বড় বাড়ির মালিকের হাতে দিল । নবীজী(সাঃ)এর কথা শুনে তারাতারি পত্রটি খোলে ফেললো, এর মধ্যে লেখা আছে _

শিক্ষনিয় পোষ্ট- স্ত্রীকে ফোন করছে, কিন্তু নাম্বার ওয়েটিং

নেট থেকে সংগৃহীত 
স্বামী বাজারে গিয়ে স্ত্রীকে ফোন করছে, কিন্তু নাম্বার ওয়েটিং। স্বামী বাসায় এসে দরজার ওপাশ থেকে স্ত্রীকে সালাম দিলেন, তারপর জিজ্ঞাসা করলেন

কেমন আছো??
স্ত্রী বলল ভাল, 

স্বামী বলল, তোমায় ফোন করেছিলাম, কিন্তু নাম্বার ওয়েটিং ছিলো, কোথায় কথা বলছিলে?
স্ত্রী বলল আমার বান্ধবীর সাথে,

স্বামী বলল, আমার আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালা আদেশ করেছেন সত্য বলার
জন্য, যদিও তোমার জীবন বিপন্ন হয়ে যায়, আর বান্দা যখন মিথ্যা কথা বলে, তখন তাহার মিথ্যা কথার দুর্গন্ধে ফেরেশতা ১ মাইল দূরে চলে যায়। আর আল্লাহর রাসূল বলেছেন,

শীতে মানুষ বিয়ে করে কেন-----

সবকিছুরই একটা সিজন আছে। সেই হিসেবে বিয়েরও সিজন থাকতেই পারে। বিয়ের সিজন কোনটা, সেটা সবার জানা। একটু বিশদভাবে বললে বলা যায়, অনেকে হয়তো ‘বাংলাদেশের রাজধানী কোথায়’ টাইপের প্রশ্নের উত্তর না জানতে পারে, কিন্তু বিয়ের সিজন কোনটা, সেটা অবশ্যই জানে। জি, বিয়ের সিজন হচ্ছে শীতকাল। আর সেই শীতকালই চলছে এখন। যে কারণে চারপাশে এখন চলছে বিয়ের ধুম। মানুষ কারণে অকারণে প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে বিয়ে করছে। আমার এক চাচা বললেন, ‘শীতকাল আসার পর থেকেই মানুষ উত্সবমুখর পরিবেশে বিয়েশাদি করছে, বিষয়টা অত্যন্ত ইতিবাচক। এই জন্য আমি সদ্য বিবাহিত অ্যান্ড বিবাহিতাদের জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা। তবে তাদের পরিণতির কথা ভেবে আমার একটু কষ্টও হচ্ছে।’ আমি বললাম, ‘পরিণতি মানে কী? বিয়ে করলে মানুষের স্বাধীনতা কমে যায়, আপনি কি এটাই বলছেন?’ চাচা বললেন, ‘এটা কোনো পরিণতি নারে পাগলা। আসল পরিণতি হচ্ছে সর্দি-কাশি।’ আমি চাচার দিকে ক্যাবলাকান্তের মতো তাকিয়ে রইলাম। চাচা খুব ভালো করেই বুঝলেন আমি তার কথার আগাও বুঝিনি, মাথাও বুঝিনি। তাই তিনি ভালো করে বোঝালেন, ‘বিয়ে করতে যাওয়ার সময় বর যদি শীতে কাঁপতে কাঁপতে পড়েও যায়, সে কিন্তু বিয়ের পোশাকের উপর কোনো শীতের কাপড় পরে না। কনের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। তার মানে বিয়ের কারণে ছেলেমেয়েরা প্রচণ্ড শীতের মধ্যেও গরম কাপড় পরতে পারে না। বিয়ের আসরে বসে কাঁপে, পরবর্তীতে সর্দি কাশি বাধায়। গরমকালে বিয়ে হলে কিন্তু এই বিপদটা হতো না।’

স্ত্রীর কথা শুনে বল্টু চালাকি করতে গিয়ে এই কি সর্বনাশ করল

বল্টু রোজ রাতে বিছানায় প্রশাব করে দেয়, বল্টুর স্ত্রী রোজ বিছানা পরিষ্কার করতে করতে হাঁপিয়ে গেছে । একদিন বল্টুর স্ত্রী বলল , এত বড় হয়ে গেছ আর এখনও বিছানায় মুতো তোমার লজ্জা করে না ?



বল্টু বলল ঘুমের় মধ্যে শয়তানে বলে , মুত সোনার বাটি দিব তখন মুতে দিই কিন্তু বেটা শয়তান সোনার বাটি না দিয়ে চলে যায় আর ঘুম থেকে উঠে দেখি বিছানায় মুতে দিয়েছি ।

এটা শুনে বল্টুর স্ত্রী বলল আজ যখন শয়তান সোনার বাটি দেওয়ার কথা বলবে তখন বলবে আগে সোনার বাটি দে তারপর মুতবো ।

এটা শুনে বল্টু ঘুমিয়ে গেল । ঘুমের মধ্যে আবার শয়তান হাজির-- 

শয়তান বলল মুত সোনার বাটি দিব । এবার বল্টু বলল আগে, সোনার বাটি দে তারপর

সমাজে প্রচলিত কিছু কুসংস্কার জেনে নিন---

গ্রামে গঞ্জে আমাদের সমাজে প্রচলিত কিছু কুসংস্কার জেনে নিন। অন্ধের মত বিশ্বাস করে। 


১) পরীক্ষা দিতে যাওয়ার পূর্বে ডিম খাওয়া যাবে না। তাহলে পরীক্ষায় ডিম (গোল্লা) পাবে।

২) নতুন স্ত্রীকে দুলা ভাই কোলে করে ঘরে আনতে হবে।
৩) দোকানের প্রথম কাস্টমার ফেরত দিতে নাই।
৪) নতুন স্ত্রীকে নরম স্থানে বসতে দিলে মেজাজ নরম থাকবে।
৫) বিড়াল মারলে আড়াই কেজি লবণ দিতে হবে।
৬) ঔষধ খাওয়ার সময় ‘বিসমিল্লাহ বললে’ রোগ বেড়ে যাবে।
৭) জোড়া কলা খেলে জোড়া সন্তান জন্ম নিবে।
৮) রাতে নখ, চুল ইত্যাদি কাটতে নাই।
৯) চোখে কোন গোটা হলে ছোট বাচ্চাদের নুনু লাগালে সুস্থ হয়ে যাবে।
১০) ভাই-বোন মিলে মুরগী জবেহ করা যাবে না।

অহংকার না করাই ভালো

নিজেকে শ্রেষ্ঠ মনে করা এবং অপরকে ক্ষুদ্র বলে বিবেচনা করা। অন্যের ভালো সহ্য করতে পারে না। মনে অনেক হিংসা আর ঈর্ষা থাকে।টাইটানিক যিনি বানিয়েছিলেন, তাকে প্রশ্ন করা হয়েছিলো জাহাজটা কতটুকু নিরাপদ? উত্তরে তিনি পরিহাসের সুরে বলেছিলেনঃ "এমন কি খোদাও এটাকে ডুবাতে পারবেন না"। পরের ইতিহাস সবাই জানে।

ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী টেনক্রেডো নেভেস নির্বাচনী প্রচারণার সময় বলেছিলেনঃ "আমার দলের জন্য পাঁচ লাখ ভোট নিশ্চিত। এমন কি খোদাও তো আমাকে প্রেসিডেন্ট পদ থেকে সরাতে পারবেন না"।
নেভেস ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছিলেন ঠিকই। কিন্তু হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন
এবং প্রেসিডেন্ট হওয়ার ঠিক একদিন আগে মারা যান।
ব্রাজিলিয়ান কবি-গায়ক এগনোর মিরান্ডা কাজুজা এক বার শো করার
সময় সিগারেটে সুখটান দিয়ে বাতাসে ধোঁয়া ছেড়ে বলেছিলেনঃ "খোদা এটা তোমার জন্য"।
কাজুজা বত্রিশ বছর বয়সে ফুসফুস ক্যান্সারে ভয়ংকর ও বিভৎস অবস্থায় মারা যান।

বেচারা পুরুষ না কাপুরুষ

সংগৃহীত 

সমাজের আগায় ও মাথায় ভর করে হাটে-বাজারে, অফিস-আদালতে পথে-ঘাটে, কাচারি-দরবারে, টিভি, স্যাটেলাইট এবং বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে মেয়ে মানুষের বিচরণ ছেলে মানুষের চেয়ে কম না।এখন মেয়ে শাসিত আইন চলতেছে। মেদের কিছু বলা যায় না, সে যে অবলা ! মেয়েরা সব করতে পারবে সে যে মেয়ে! কথায় কথায় মেয়েরা জ্বলে ওঠে, সমান অধিকার। 

তাজমহল ভেঙ্গে, বিড়ির দোকান--- কৌতুক

সংগৃহীত 
বর্তমান প্রেক্ষাপটে প্রেমের যে কাহিনী চলতেছে তাহার কথা বলে শেষ করা যাবে না। সকাল থেকে সন্ধ্যা আর সন্ধ্যা থেকে সকাল এর মাঝে চলে প্রেমের কত রং তামশা। আহারে 
বর্তমান প্রেমের

২০১৮ সালের এসএসসি পরীক্ষার রুটিন- ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ২০১৮ সালের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট-এসএসসি পরীক্ষা শুরু--

আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ২০১৮ সালের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট-এসএসসি পরীক্ষা শুরু হচ্ছে। বুধবার শিক্ষা মন্ত্রণালয় পরীক্ষার সময়সূচি ঘোষণা করে। প্রকাশিত সূচি অনুযায়ী এসএসসির লিখিত পরীক্ষা শেষ হবে ২৪ ফেব্রুয়ারি। এরপর হবে ব্যবহারিক পরীক্ষা।নীচের লিংক থেকে রুটিন ডাউনলোড করতে পারবেন। 

Download SSC Routine 2018


 





বাণী চিরন্তণী- মানুষ

মানুষ বড়ই আশ্চর্যজনক ও বোকা। সে সম্পদ অর্জন করতে গিয়ে স্বাস্থ্য হারায়। আবার স্বাস্থ্য রক্ষা করতে গিয়ে সম্পদ নষ্ট করে। সে বর্তমানকে ধ্বংস করে ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবে, আর ভবিষ্যতে গিয়ে আবার অতীত নিয়ে কাদে। সে এমনভাবে জীবন কাটায় যেন সে কোনদিন মরবেই না, আর এমন ভাবে মরে যেন সে কোনদিন জন্মায়ই নি।

নিজের বিবেকের কাছে প্রশ্ন কর- কোনটা সঠিক, কোনটা ভালো।

নিজের বিবেকের কাছে প্রশ্ন কর- কোনটা সঠিক, কোনটা ভালো। জীবন সুখ শান্তি নির্ভর করে কর্মক্ষেত্রের উপরেই একান্ত নিজের উপরে। কর্মক্ষেত্রে সংগ্রাম করবে কি করবে না নিজের ব্যাপার। 

কর্মক্ষেত্রে দুই ধরনের বস (Boss) থাকে : 
1. একজন কাজ পছন্দ করে । কাজে পারদর্শীদেরকে পছন্দের তালিকার শীর্ষে রাখে । 
2. আরেকজন তৈল পছন্দ করে । যারা সবসময় জ্বী স্যার জ্বী স্যার করতে পারে তাদেরকেই নিজের পাশে রাখে । 

*যদি কাজ শিখে নিজের ক্যারিয়ার গড়তে চান

হিসাব-নিকাশ এর প্রয়োজনীয় কিছু তথ্য

হিসাব-নিকাশ এর প্রয়োজনীয় কিছু তথ্য তুলে ধরা হলো। আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে।

1 ফুট = 12 ইঞ্চি
1 গজ = 3 ফুট
1 মাইল = ১৭৬০ গজ
1 মাইল ≈ 1.61 কিলোমিটার
1 ইঞ্চি = 2.54 সেন্টিমিটার
1 ফুট = 0.3048 মিটার
1 মিটার = 1,000 মিলিমিটার
1 মিটার = 100 সেন্টিমিটার
1 কিলোমিটার = 1,000 মিটার
1 কিলোমিটার ≈ 0.62 মাইল

ক্ষেত্রঃ
1 বর্গ ফুট = 144 বর্গ

দিনের বেলায় বউয়ের আল্লাহ রাসুলের কথা। আর মাঝ রাতে কি করে??


স্ত্রী গভীর রাতে প্রতিদিন স্বামীর পাশ থেকে ঘুম থেকে উঠে আধা ঘন্টা এক ঘন্টার জন্য কোথায় যেন যায়! - কিন্তু একা সে কোথায় যায় এবং কেন যায়…? ! স্বামীতো চিন্তায় অস্থির। তাহলে বউ কি আমার কোন খারাপ সম্পর্কে জড়িয়ে গেল…? !
আবার ভাবছে বউতো ঠিকমতো নামাজও পড়ে! তাহলে কি সে লোক দেখানো নামাজ পড়ে,,,,,,? 
নাকি ভাল মানুষের আড়ালে অন্য কিছু করছে,,,,,?
:
নাহ্ অবশেষ স্বামী সিদ্ধান্ত নিলো' 

এক বেকার ইঞ্জিনিয়ার রোগের চিকিৎসা করল ডাক্তারকে!!!

এক ইঞ্জিনিয়ার কিছুতেই চাকরি পেলনা। তখন সে একটা ক্লিনিক খুলল আর

বাইরে লিখে দিল, “৩০০ টাকায় যে কোন রোগের চিকিৎসা
করান। চিকিৎসা না হলে এক হাজার টাকা ফেরৎ।“
.
এক ডাক্তার ভাবল এক হাজার টাকা
রোজকার করার একটা
দারুণ সুযোগ...
.
সে সেই ক্লিনিকে গেল আর বলল “আমার কোন জিনিষ খেতে গেলে তাতে কোন স্বাদ পাইনা।“
.
ইঞ্জিনিয়ার নিজের নার্সকে বলল, 
“২২ নাম্বার বক্স থেকে ওষুধ বার কর 
আর ৩ ফোটা খাইয়ে দাও।“
.
নার্স খাইয়ে দিল।
.
রুগী (ডাক্তার)–
“আরে, এটা তো পেট্রোল।“
.
ইঞ্জিনিয়ার–
“Congratulation ...
দেখলেন তো

সিংহের গতিবেগ ঘন্টায় প্রায় ৮০ কি.মি. আর হরিণের গতিবেগ ৮৫ কি.মি. এর উপরেও ওঠে, এরপরও সিংহ হরিণকে শিকার করে!!!

সিংহের গতিবেগ ঘন্টায় প্রায় ৮০ কিলোমিটার। তবে কিছু হরিণের গতিবেগ কখনও কখনও ৮৫ কিলোমিটারের উপরেও ওঠে। এরপরও সিংহ হরিণকে শিকার করে। কীভাবে করে জানেন? সিংহ যখন হরিণকে তাড়া করে তখন হরিণটি দৌড়ানোর সময় বারবার পিছে ফিরে তাকায়, সিংহটি আর কতটুকু দূরে আছে সেটা দেখার জন্য। এ কারণে হরিণের গতি কমে যায়। অন্যদিকে সিংহটি সামনে দৌড়ানো হরিণটিকে দেখে মনে করে, "এই তো, আরেকটু হলেই ওকে আমি ধরে ফেলবো"।

অস্থির মন

সবাই বলে বয়স বাড়ে, আমি বলি কমেরে---- সত্যি বলতেই এইটাই বাস্তব।গান শুনার অভ্যাস থাকলে সবাই বলে বয়স বাড়ে আমি বলি কমেরে লিংক ক্লিক করে গানটি শুনতে পারেন।  গান শুনতে শুনতে অস্তির মন লেখাটি পড়তে পারেন।  
প্রকৃতির এই লিলাভুমিতে মা/বাবার অবদানে আল্লাহ্‌র মেহেরবানিতে  মায়ের কোলে শিশু হয়ে জন্ম।শিশু বয়স থেকে যুবক হতে সময়  গেল ১৬/১৭ বছর। এই বয়স গুলী কিভাবে পার হয়েছে তাহার হিসাব নাই,,, পিছনের কথা বাদ দিয়ে নতুন এর হিসাব শুরু করতে করতে সময় পার করে দিলাম আর কয়েকটি বছর। জীবন কি তাহা বুঝতে পারলাম না এখনো। জীবনের এই যাত্রা শুরু করার স্বপ্ন দেখে শুরু হল প্রেম বিরহ এইভাবে চলে গেল আর কয়েকটি বছর এইভাবে বয়স হল ২৫/২৬ বছর-------------

কিছু ক্ষন তোলে মনে পাগলা হাওয়া কিছু চিন্তা বারবার করে আসা-যাওয়া। কিছু কল্পনা যখনই করে দে সবকিছু স্থির মন আমার তখন হয়ে উঠে অস্থির! (কে এম আবদুল্লাহ রিয়াদ এর লেখা কবিতা অস্থির মন 


টিক টিক করে ঘড়ির কাটা ঘোরতে ঘোরতে সময় চলে । ক্যালেন্ডার এর পাতায় দিন গোনতে গোনতে মাস, মাসের পরে মাস পুরীয়ে পুরাতন পাতা বাদ দিয়ে নতুন পাতার আগমনীতে পুণ্য

স্বামীর প্রতি স্ত্রীর ভালোবাসা


স্ত্রীর ভালোবাসায়, ঘরে ঢুকেই অবাক হয়ে গেল স্বামী । স্ত্রী ব্যাগ গোছাচ্ছে---- 


স্বামী: সে কী! কোথায় যাচ্ছ তুমি?
স্ত্রীঃ বাপের বাড়ি। 
স্বামীঃ কেন?
স্ত্রীঃ থাকব না আমি তোমার সঙ্গে।
স্বামীঃ আশ্চর্য! কী অন্যায় আমার?
স্ত্রীঃ আমার বাবা একটা ভুল মানুষের কাছে আমাকে বিয়ে দিয়েছেন।
স্বামীঃ বুঝলাম, কিন্তু আমার ভুলটা কি বলবে তো?

নিচের লিঙ্ক গুলি থেক পছন্দ মত খুজে নিয়ে পড়ুন

অন্যান্য ভালো থাকুন গল্প ইসলাম শিক্ষা তাজা খবর হাঁসির গল্প কম্পিউটার জেনে রাখা ভালো স্বাস্থ্য অন লাইনে টাকা আয় করুন। জব(job) ফল এর পুষ্টিগুণ কবিতা জীবনের পাতা থেকে নেওয়া নিজের হাতে তৈয়ার করুন ব্লগ সাইট ১৮+ জমি জমার হিসাব (ভূমির পরিমাণ পদ্ধতি) ডাউনলোড করুন কথা কৌতুক এফিলিয়েট এর মাধ্যমে আয় করুন গেম(Games) নবীদের জীবনী পড়ালেখা ডিজাইন fast2earn তথ্য প্রযুক্তি Facebook এসএমএস ছন্দ বাণী চিরন্তণী শিক্ষনিয় পোষ্ট গবেষণা গান বিয়ে সাধারণ জ্ঞান Alertpay বা Payza Bangla Font অডিও ভিডিও এডিটিং শিখুন ঈদের নামাজের নিয়ম উপদেশ ঋতু ওয়েব কিছু প্রয়োজনীয় ওয়েব সাইট সমূহ ক্যাপচা টাইপ গাছের মাপ বা ফুট হিসাব গুগল প্লাস ছেলে মেয়েদের সুন্দর নাম ধাঁধা পাখির ছবি প্রাইজবন্ড ড্র এর ফলাফল ফেব্রুয়ারির ২৯ লিপ ইয়ার কেন হয়? বাংলা SMS বাংলাদেশের প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় এর তালিকা বাছাই করা ছবি/মভিই ভুমিকম্প মা সফলতার চাবিকাঠি স্বর্ণের ওজন পরিমাপ

এই ব্লগ সাইটের পোষ্ট গুলি ফেসবুকে নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক দিন